কুবির ‘এ’ ও ‘বি’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত; উপস্থিতি হতাশাজনক

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুবি) ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের প্রথম বর্ষ স্নাতক (সম্মান) শ্রেণির ‘এ’  ও ‘বি’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে। আজ শুক্রবার সকাল ১০ টা থেকে ১১টা পর্যন্ত ‘এ’ ইউনিট এবং বিকাল  ৩টা থেকে ৪টা পর্যন্ত ‘বি’ ইউনিটের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। তবে প্রায় তিনমাস বিলম্বিত ভর্তি পরীক্ষায় এবছর উপস্থিতির সংখ্যা ছিলো হতাশাজনক। সকালে অনুষ্ঠিত ‘এ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষায় উপস্থিতির সংখ্যা ছিলো মাত্র ৩৮.৯২%। পরবর্তী বিকালে অনুষ্ঠিত ‘বি’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষায় ৪২%শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন।

ভর্তি পরীক্ষা কমিটি সূত্রে জানা যায়, ‘এ’ ইউনিটে ২৩ হাজার ৬ শত ২৫ জন আবেদনকারীর স্থানে ভর্তি পরীক্ষায় উপস্থিতি ছিল মাত্র ৮ হাজার ৯৫৯ জন। জানা গেছে, এমনও কেন্দ্র ছিল যেখানে এক কক্ষে ১০ থেকে ১২ জন পরীক্ষার্থী উপস্থিত ছিল। আবার কোনও কোনও কেন্দ্রে উপস্থিতির সংখ্যা বেশি ছিল। তবে আবেদনের পরিবর্তে উপস্থিতির সংখ্যা হতাশাজনক বলে মনে করছেন বিশ্ববিদ্যালয় সংশ্লিষ্ট সকলে। ভর্তিচ্ছুদের উপস্থিতি আশঙ্কাজনক হারে কম হওয়ার কারণ হিসেবে দেরিতে পরীক্ষা নেওয়াকে দায়ী করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। এর ফলে এ বছর কেমন মেধাবী শিক্ষার্থী পাবে বিশ্ববিদ্যালয়-এমন প্রশ্নও তুলেন তারা।

‘এ’ ইউনিট প্রধান ড. মো: আবু তাদের বলেন, ‘সকলের সহযোগিতা এবং আন্তরিকতায় আমরা সুষ্ঠুভাবে ভর্তি পরীক্ষা নিতে পেরেছি।’ ‘বি’ ইউনিট প্রধান অধ্যাপক ড. মাসুদা কামাল কুমিল্লার খবরকে বলেন, ‘স্বচ্ছ, সুন্দর, শৃঙ্খলিত ভাবে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সবাই সহযোগিতা না করলে সুষ্ঠভাবে পরীক্ষা নেয়া যেত না।  এভাবে সবার সহযোগিতায় এগিয়ে নেয়া যাবে বিশ্ববিদ্যালয়কে।’

এদিকে পরীক্ষা চলাকালীন সময়ে বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য প্রফেসর ড. এমরান কবির চৌধুরী ইউনিট প্রধান, বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টরসহ বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষকদের নিয়ে পরীক্ষার কেন্দ্র পরিদর্শন করেন। পরিদর্শন শেষে তিনি বলেন, ‘উৎসবমুখর পরিবেশ ও কোনও ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই সুন্দরভাবে ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হচ্ছে।’

ভর্তি পরীক্ষার ফলাফল বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইট www.cou.ac.bd থেকে জানা যাবে। উল্লেখ্য ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষা ১৭ ও ১৮ নভেম্বর অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয়ের নানা সমস্যার কারণে তখন পরীক্ষা নিতে পারেনি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

Comments

comments