বরুড়ায় ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে সদস্যদের অনাস্থা

কুমিল্লা( কুমিল্লার খবর.কম ): বরুড়া উপজেলার শাকপুর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মো. মমতাজ উদ্দীনের বিরুদ্ধে সরকারের স্থায়ী সম্পত্তি হস্তান্তর কর তহবিলের নয় লাখ ৮৫ হাজার ৩২৪ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে। কোনো কাজ না করেই চেয়ারম্যান ওই টাকায় ব্যক্তিগত ঋণ পরিশোধ করেছেন বলে জানা গেছে।

এ পরিস্থিতিতে ওই ইউপির নয়জন সদস্য গত বুধবার চেয়ারম্যানকে অপসারণের দাবিতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) কাছে চিঠি দেন। মমতাজ উদ্দীন নবগঠিত শাকপুর ইউপির প্রথম নির্বাচিত চেয়ারম্যান।

জানতে চাইলে বরুড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ছানিয়া আক্তার বলেন, ‘শাকপুর ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে আর্থিক অনিয়মের অভিযোগ এনে ওই ইউনিয়নের নয়জন সদস্য অনাস্থা প্রস্তাব দিয়েছেন। একই সঙ্গে তাঁকে অপসারণের জন্য আমার কাছে আবেদন করা হয়। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।’

ইউনিয়ন পরিষদের নয়জন সদস্য জানান, ২০১২-১৩ অর্থবছরে নামসর্বস্ব বিভিন্ন প্রকল্প দাখিল করে শাকপুর ইউপির চেয়ারম্যান নয় লাখ ৮৫ হাজার ৩২৪ টাকা উত্তোলন করেন। ওই ইউনিয়নের গত ছয় মাসের সরকারের স্থায়ী সম্পত্তি হস্তান্তর কর তহবিলের শতকরা ১ ভাগ টাকা চেয়ারম্যান একক ক্ষমতা দেখিয়ে উত্তোলন করেন। ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর তিনি কোনো প্যানেল চেয়ারম্যান গঠন করেননি। স্থানীয় সরকার (ইউনিয়ন পরিষদ) আইন, ২০০৯ মোতাবেক পরিষদ গঠিত হওয়ার পর প্রথম সভার ৩০ কার্যদিবসের মধ্যে তিন সদস্যবিশিষ্ট প্যানেল চেয়ারম্যান গঠন করতে হবে। কিন্তু এ ক্ষেত্রে ওই আইন মানা হয়নি।

ওই ইউপির ১, ২, ৪, ৬, ৮ ও ৯ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য ও সংরক্ষিত ওয়ার্ডের তিন নারী সদস্য ওই অনাস্থা প্রস্তাব দেন।

অভিযোগের ব্যাপারে জানতে চাইলে মো. মমতাজ উদ্দীন বলেন, ‘আমি কোনো টাকা উত্তোলন করিনি। মেম্বাররাই (সদস্য) টাকা উঠিয়েছে। আমার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ একেবারেই অসত্য।’ প্যানেল চেয়ারম্যান নির্বাচন প্রসঙ্গে তিনি কোনো মন্তব্য করেননি।

 

কুমিল্লার খবর.কম, ০৬-০৭-১৩

Comments

comments